রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৬ অপরাহ্ন

নলডাঙ্গায় পার্ক নির্মাণের অন্তরালে দুর্ণীতির অভিযোগ

admin
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার ১৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩৫০ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক
নাটোরের নলডাঙ্গার হাট রেলওয়ে ষ্টেশন পার্ক নির্মাণের অন্তরালে ব‍্যাপক অনিয়ম ও লক্ষ লক্ষ টাকার দুর্ণীতির অভিযোগ উঠেছে।
এই ঘটনায় অভিযুক্ত মামুনুর রশিদ মামুন ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চল রাজশাহীর জেনারেল ম‍্যানেজারের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।
অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, নলডাঙ্গা উপজেলার খোলাবাড়িয়া গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে মামুনুর রশিদ মামুন ও তার কয়েক জন সহযোগী এবং প্রশাসনের ২/১ জন অসৎ কর্মকর্তার যোগসাজসে নলডাঙ্গার হাট রেল ষ্টেশন সংলগ্ন দক্ষিণ প্রান্তে রেলওয়ের বিশাল জায়গা করেছে। সেখানে একটি পার্ক নির্মাণ করে পার্কের কাজ করার কথা বলে সরকারি ও বেসরকারি ভাবে বিভিন্ন ব‍্যাক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করে দুর্ণীতির মাধ্যমে আত্মসাত করেছে। এছাড়াও পার্ককে পুজি করে একটি বিশাল পাকা ভবন নির্মাণ করে সেখানে কনফেকশনারী ও কফি হাউসের ব‍্যবসা পরিচালনা করছে।
এই বিষয়ে রাজশাহী রেলওয়ের জি এম বলেন, রেলওয়ের জায়গাই অনুমতি ছাড়া ষ্টেশনের সাথে পার্ক বা ভবন নির্মাণ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। আমি রেলওয়ের অফিসারকে ব‍্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দিয়েছি।
এবিষয়ে রেলওয়ের পাকশী অফিসের ডিইও জানান, পার্কের নাম ভাঙ্গিয়ে কে বা কারা ব‍্যবসা ও দুর্ণীতির মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে সেই বিষয়টি ভিন্ন কথা, তবে রেলওয়ের জায়গাতে অনুমতি বিহীন ভাবে গড়ে উঠা পার্কের বিরুদ্ধে অফিসিয়ালি ভাবে ব‍্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ঘটনায় নলডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগ সেক্রেটারী মুশফিকুর রহমান মুকু ও নলডাঙ্গা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাহেব আলী সহ অনেকেই জানান, পার্কে স্থানীয় ভাবে কোন কমিটি না থাকায় মামুন একক ভাবে পরিচালনা করায় অনিয়ম ও দুর্ণীতির বিষয় থাকাটা স্বাভাবিক। মামুন নলডাঙ্গায় খালি হাতে এসে প্রশাসন ও দুই এক জন ব‍্যক্তির সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলে বতর্মানে লাখপতি বনে যাওয়ায় এবং আয়েশি জীবন – যাপন করায় তার মধ্যে দুর্ণীতির ও অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। তবে তারা প্রত‍্যাশা করেন, স্থানীয় ভাবে গন‍্যমান‍্য ব‍্যক্তিদের নিয়ে কমিটি করে আয়-ব‍্যায়ের হিসাব দিলে বিষয়টি নিয়ে স্বচ্ছতা ফিরে আসবে। হিসাবের জবাব দিহীতা থাকলে অনিয়ম ও দুর্ণীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাত দুর হবে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মামুনুর রশিদ মামুন সংবাদ কর্মিদের বলেন, পার্কের নামে কোন টাকা পয়সা তিনি নেননি শুভাকাঙ্ক্ষীরা নিজেরাই নির্মাণ সামগ্রী কিনে সহায়তা করেছেন। তিনি কোন নগদ টাকা গ্রহণ করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..